বড়দের জন্য ১৮+ এডাল্ট জোকস পার্টঃ-২৮

(১) মেয়েঃ ডাক্তার সাহেব, আমার বয়ফ্রেন্ড অত্যন্ত বাজে একটা ছেলে।

ডাঃ কেন এই কথা বলছেন কেন?

মেয়েঃ সে আমাকে কিস করেছে?

ডাঃ মানে এইভাবে (ডাঃ কিস করলো)…তাতে কি হয়েছে?

মেয়েঃ সে আমার জামা খুলেছে।

ডাঃ মানে এইভাবে (ডাঃ মেয়েটার জামা খুলল)…তাতে কি হয়েছে?

মেয়েঃ তারপর সে আমার সাথে সেক্স করছে।

ডাঃমানে এইভাবে (ডাঃ মেয়েটার সাথে সেক্স করল)…তাতে কি হয়েছে?

মেয়েঃ শেষে আমাকে বলল যে তার এইডস আছে।

ডাঃ ওরে মাগী, আগে কবি তো!!!

এল্লেগাই তো কই, ফাও লাগাইতে নাই

(২) চায়ের দোকানে আড্ডা হচ্ছে। এক লোক বললেন, ‘ঘটনা শুনেছেন। গত রাতে আমাদের এলাকার মজনু সাহেব বাড়িতে ফিরে দেখেন, স্ত্রী তার এক বন্ধুর সঙ্গে অপ্রীতিকর অবস্থায় আছেন। এই দেখে তিনি রাগ দমাতে না পেরে সঙ্গে সঙ্গে রিভলবার বের করে গুলি করে দু’জনকে মেরে নিজেও আত্মহত্যা করলেন।’

পাশে বসে থাকা অপরজন বললেন, ‘এটা তো তেমন কিছুই নয়, ঘটনা আরো সাংঘাতিক হতে পারত।’ প্রথম লোক বললেন, ‘কি বলেন? এক সঙ্গে ট্রিপল ট্রাজেডি আর আপনি বলছেন আরো সাংঘাতিক হতে পারত? তো কি রকম সাংঘাতিক হতে পারত?’

অপরজন বললেন, ‘গতকাল যদি সোমবার না হয়ে বৃহস্পতবিার হতো তাহলে ঐ গুলিটা আমাকেই খেতে হত।

(৩) নায়কঃ চৌধুরী সাহেব!!

আমি আপনার চকলেট

মার্কা মাইয়ারে বিয়া করতে চাই!

নায়িকার বাবাঃ কি!!! তোমার

কি আছে যে বিয়া দিমু?? – আমার

ফেসবুকে account আছে। – হাহ!!

ফেসবুকে তো এখন সবারই account

থাকে। আমারও আছে। – হ্যা! আপনার

account আছে বলেই তো আপনার

কাছে এসেছি। – মানে??? কেন??? –

চৌধুরী সাহেব!!

আপনি ফেসবুকে জরিনা খাতুন

নামে কাউরে চিনেন??? এবার

চৌধুরী চমকে গেলো।

নায়ককে কাছে ডেকে বললো… –

তুমি জরিনারে কেমনে চিনো??? –

হাহাহা… চৌধুরী সাহেব!!!

জরিনা খাতুন আমার ফেক আইডি। আর

সেই আইডি দিয়া আপনার

লগে তিনমাস প্রেম করেছি।

বেশি বারাবারি করলে আপনার

দেয়া সব মেসেজ ফাঁস কইরা দিমু!! –

ওরে কে কোথায় আছিস!!!

কাজী ডাইকা আন। আইজকাই আমার

চকলেট মাইয়ার লগে তোমার

বিয়া দিমু বাপজান!!

(৪) প্রচণ্ড অলস এক লোক বড়শিতে মাছ তুলে বসে আছে।

পাশ দিয়ে একজনকে যেতে দেখে কোমল স্বরে বললেন, ভাই মাছটা একটু খুলে দেবেন? একটু বিরক্ত হয়েও মাছটা খুলে দিলেন লোকটি।

তারপর বললেন, এত অলস আপনি! এক কাজ করেন- একটা বিয়ে করেন।

ছেলেপেলে হলে আপনাকে কাজে সাহ করতে পারবে। উত্তর এলোঃ ভাই, আপনার জানাশোনা কোনো গর্ভবতী মেয়ে আছে ?

(৫) একদিন হাটতে হাটতে বল্টু দেখল

একটি মেয়ে

ব্রিজ থেকে লাফ দিতে যাচ্ছে।

বল্টু জিজ্ঞাস করল:

আপনি কি আত্মহত্যা করতেছেন?

মেয়েটাঃ হ্যাঁ…।

বল্টুঃ আপনি তো আত্মহত্যাই

করতেছেন, তাই আমি

কি আপনাকেএকটা kiss করতে পারি?

মেয়েটা রাজি হল। kiss করল।

kiss করে বল্টু জিজ্ঞাস করল

যে আপনি কেন আত্মহত্যা করছেন।

মেয়েটাঃ দেখুন, আমার কি দোষ।

আমি ছেলে বলে কি

মেয়েদের মতো কাপড় পড়ে একটু

সাঁজতে পারি না। আজব।

আমি মেয়েদের মতো কাপড়

পড়তে চাই। কিন্তু Family থেকে দেয়

না। তাই আই জীবন

রাখব না।

বল্টু কথাটা শুনে নিজেই ব্রিজ

থেকে লাফ

দিয়ে আত্মহত্যা করল…

You might also like More from author

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Call Now
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com

১৮ প্লাস

Call Now