বড়দের জন্য ১৮+ এডাল্ট জোকস পার্টঃ-১৯

(১) একবার বল্টুর স্কুলের শিক্ষক বললেন বল্টু জা
.. …..পান নিয়ে আয়।
বল্টুঃ সার আপনি পাগল হলেন নাকি ?
শিক্ষকঃ হারামজাদা আমি পাগল হতে
যাবো কেন !
.
.
.
.
.
.
.
.
.
.
বল্টুঃ সার তাহলে আপনি যে বললেন জাপান
নিয়ে আসতে আমি এত ছোট স্কুলে জাপান
আনবো কিভাবে 

(২) ছেলেটি রিক্সায় বসে আছে রিক্সাওয়ালা গেছে
পাশের একটা দোকানে টাকা ভাঙাতে……
-হঠাৎ একটা মেয়ে এসে বললঃ
.
–ভাই সাভার যাবেন?
_ ছেলেঃ আমাকে বলছেন?
_মেয়েঃ হ্যাঁ রিক্সাতে
বসে আছেন
তাই তো বলছি!
_ ছেলেঃ রিক্সাতে বসে 
আছি মানে!?
_মেয়েঃ মানে আপনি
রিক্সাওয়ালা তো, তাই
আপনাকে বলছি।
ছেলেঃ আমাকে দেখে আপনার
রিক্সাওয়ালা মনে হয়?
_
মেয়েঃ হবে না কেন!! ২০১৬
সালের ডিজিটাল রিক্সাওয়ালা,
তাই এত সুন্দর ভাব নিয়ে বসে আছেন!
_ (এত্তবড় অপমান সহ্য করার নয়) ছেলে পকেট থেকে
দশ টাকা বের করল….
_ এই নিন দশ টাকা!
_মেয়েঃ টাকা!! এটা দিয়ে কি
হবে!!?
_ছেলেঃ ভিক্ষা দিচ্ছি _
মেয়েঃ মানে? আমাকে দেখে
আপনার ভিখারী মনে হয়?
_ছেলেঃ হবে না কেন!!
২০১৬ সালের ডিজিটাল ভিখারি!
একটু সাজুগুজু করে, চোখে সানগ্লাস, কাঁধে
ভ্যানিটি ব্যাগ নিয়ে বের হয়েছেন

(৩) বল্টু এফএম রেডিও
স্টেশনে কল করল:
“হ্যালো,
এটা কী এফএম
রেডিও 76.00 ?রেডিও 76.00 ??”
.
. RJ : জি, বলুন।
.
.
বল্টু : আমার
কথা কী পুরা শহরে
শোনা যাচ্ছে ?
. .
RJ : হ্যাঁ, সবাই
শুনতে পাচ্ছে বলুন।
.
.
বল্টু : তারমানে আমার
বোন
যে রেডিও শুনছে, সেও
শুনতে পাচ্ছে ?
.
.
RJ : (রাগতস্বরে) আরে
বেকুব
হ্যাঁ।
. .
.
.
.
.
বল্টু : হ্যালো পিংকি,
যদি আমার
কথা শুনতে পাস,
তাহলে জলদি পানির
মোটর
চালু কর।
আমি টয়লেটে বইসা
আছি আর
পানি শেষ। তোর
নাম্বারটাও বন্ধ যে।

(৪) মেয়েঃ বল্টু তুমি সাঁতার জানো? .
.
বল্টুঃ না।
.
.
মেয়েঃ কুত্তায়ও তো সাঁতার জানে। .
.
.
বল্টুঃ তুমি সাঁতার জানো?
.
.
মেয়েঃ অবশ্যই।
.
.
বল্টুঃ তাহলে কুত্তা আর তোমার মধ্যে কোন পার্থক্যই নাই।

(৫) বল্টু ফেসবুকে চ্যাট করতাছে এক
মাইয়ার
সাথে ..
মেয়েঃ হায় তোমার বাবা কি
করে…?
বল্টুঃ আমার বাবা ব্যাবসা
করে।
মেয়েঃ ও..! তোমার বাবা
অনেক
বড়লোক,
তাই না..?
বল্টুঃ হ্যাঁ.. একটা ব্যাংক
আছে।
মেয়েঃ সত্যি! তুমি আমার
সাথে
প্রেম
করবে..?
বল্টুঃ হ্যাঁ……..!!
.
.
প্রেমের পর ২ মাস ডেটিং।
এরপর…
.
.
.
মেয়েঃ তোমার বাবা তো
অনেক
বড়লোক,
তা তোমার বাইক নেই..?
বল্টুঃ আরে আমার বাবা অনেক
লম্বা, তাই
বললাম বড়লোক.
মেয়েঃ তার মানে! তোমার
বাবা
কিসের
ব্যবসা করে..?
বল্টুঃ কাঁচা তরকারি ভ্যানে
করে
বিক্রি করে।
কেনো এটাও তো একটা
ব্যবসা….!
মেয়েঃ Oh god! তোমার বাবার
না একটা ব্যাংক আছে..?
.
.
.
বল্টুঃ হ্যাঁ .. একটা মাটির
ব্যাংক

You might also like More from author

Leave A Reply

Your email address will not be published.

Call Now
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com

১৮ প্লাস

Call Now